মাহবুব তালুকদার।

সাবেক নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার মারা গেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। বুধবার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে বাসা থেকে রাজধানীর ইউনাউটেড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরেই ক্যানসারসহ নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছিলেন। স্বজনরা জানিয়েছেন, কিছুদিন আগেই হাসপাতাল থেকে তাকে বাসায় নেয়া হয়।

বিভিন্ন সময় সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন মাহবুব তালুকদার। মুজিবনগর সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন তিনি। ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহকারী প্রেস সচিবও। ২০১৭ সালে গঠিত নির্বাচন কমিশনের একজন কমিশনার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

১৯৪২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি নেত্রকোণা জেলার পূর্বধলা উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন মাহবুব তালুকদার। নবাবপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক, ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন। লেখালেখি করতেন শৈশব থেকেই। আধুনিক বাংলা সাহিত্যের একজন প্রখ্যাত কবি ও শিশু সাহিত্যিক ছিলেন তিনি।

কর্মজীবনের শুরুতে দৈনিক ইত্তেফাকে সাংবাদিকতা করতেন তিনি। নিয়োজিত ছিলেন শিক্ষকতায়ও। তৎকালীন জগন্নাথ কলেজ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপত্য বিভাগে ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে শিক্ষকতা করেন। ১৯৭১ সালে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এবং মুজিবনগর সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ে চাকুরিতে যোগ দেন। পরবর্তীতে তিনি সরকারি চাকুরির ধারাবাহিকতায় বঙ্গবভনে ৫ বছর অবস্থানকালে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৭২ সালের ২৪ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি আবু সাঈদ চৌধুরীর বিশেষ কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান। এরপর রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদউল্লাহর জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সময় তিনি তার সহকারী প্রেস সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৯ সালে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণের পূর্ব পর্যন্ত বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও সংস্থায় অধিষ্ঠিত ছিলেন।

২০১৭ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারিতে কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বে গঠিত পাঁচ সদস্যের বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সদস্য হিসেবে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ কর্তৃক নিয়োগ পান মাহবুব তালুকদার। শিশু সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি ২০১২ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

মাহবুব তালুকদার ব্যক্তিগত জীবনে নীলুফার বেগমের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ আবদ্ধ হন। এই দম্পতির দুই কন্যা ও এক পুত্র রয়েছে।